শঙ্করদারা নীরবে থাকেন ! তাই অাজও বেঁচে অাছে সততা

0
19

আজ মনটা ভরে গেল ।আমার দিদি ওর ব্যাগটা ভুলবশত একটা টোটো ফেলে এসেছিলেন।টোটো চালক গোরাবাজার কদমতলা রুটে টোটো চালান ।কথা প্রসঙ্গে উনি বলেছিলেন এই রুটে টোটো চালান । ব্যাগ হারানোয় দিদিকে অসহায় লাগছিল কারণ ওখানে দামী মোবাইলসহ টাকা ওঅন্যান্য দরকারি কাগজপত্র ছিল। যাইহোক বাদামতলায় গেলাম আমাদের শুনে বিশেষ করে একজন টোটো চালক চিহ্নিত করার চেষ্টা করলেন কে হতে পারে।
এরপর টানা সেই চালকের উদ্দেশে ফোন করে যেতে থাকলেন।অবশেষে অপরপাশ সাড়া পেলেন।এবং বললেন তার কাছে ব্যাগটা আছে ।কিছুক্ষণের মধ্যেই সেই টোটো চালক এসে উপস্থিত।দিদিকে দেখতে সব জিনিস ঠিক আছে কিনা ।এক অসাধারণ ভাললাগা আমার মনকে ভরিয়ে দিল।চারপাশে যখন শুনি চোর চ্যাছোরে দেশটা ভরে গেছে তখন শংকরদা(টোটো চালকের নাম) র মত লোকেরা আমাদের চেতনা বাঁচিয়ে রাখেন।ধন্যবাদ শংকরদা।

১১অগস্ট ২০১৯ অভিজ্ঞতা জানিয়েছেন ননী মুখোপাধ্যায়