ফের ইস্তফা অারেক IAS অফিসার, IAS দের ইস্তফা অাসলে অসহিষ্ণতার কারণে মত বিজেপি নেতার

0
48

ফের পদ থেকে ইস্তফা দিলেন এক অাইএএস অফিসার। IAS অফিসার কোশিস মিত্তল ইস্তফা দিলেন। প্রিন্ট সংবাদপত্রের রিপোর্ট অনুযায়ী কোশিসকে অরুণাচলে বদলি করা হলে তিনি যেতে রাজি হননি। নীতি অায়োগেই থাকতে চেয়েছিলেন। সরকারের সঙ্গে কোশিসের ঠোকাঠুকি নতুন নয়।  ২০১৬সালে চন্ডীগড় থেকে বদলির সময় তিনি অাপত্তি জানিয়ে  CAT এর দ্বারস্থ হয়েছিলেন।

কয়েকদিন অাগে IAS থেকে ইস্তফা দেন দক্ষিণ কর্ণাটক জেলার ডেপুটি কমিশনার শশীকান্ত সেন্থিল। ভারতীয় গণতন্ত্রের মূল বিষয়গুলিকে নজিরবিহীনভাবে অাঘাতপ্রাপ্ত করা হচ্ছে সেই সময় সরকারি পদে তাঁর থাকা অনৈতিক। অাগামী দিনে  দেশের মূল কাঠামো অারো চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বে। সেই সময় অাইএস এর বাইরে থকেে সকলের জন্য কাজ করতে চান তিনি। এক বিবৃতিতে এমনটাই জানিয়েছেন শশীকান্ত ।২০০৯ সালে তামিলনাড় থেকে ইউপিএসসিতে টপ করেছিলেন শশীকান্ত। সর্বভারতীয় স্তরে তিনি নবম স্থান অধিকার করেছিলেন।

তার অাগে অাইএএস থেকে ইস্তফা দেন গোপীনাথন কান্নন।   স্বাধীনতা ফিরে পেতে চাকরি থেকে ইস্তফা দেন ২০১২ ব্যাচের IAS অফিসার কান্নান গোপীনাথন।  দাদর নগর হাভেলি প্রশাসনের দায়িত্বপূর্ণ পদে থাকার পর গত ২১ অগস্ট তিনি তার ইস্তফাপত্র দেন। জম্মু কাশ্মীরে বর্তমান পরিস্থিতিতে গণতান্ত্রিক পরিসরকে যেভাবে দমিয়ে রাখা হয়েছে তাতে ব্যথিত এই তরুণ অাইএএস অফিসার।একটি রাজ্যের নাগরিকদের গণতান্ত্রিক অধিকার যেভাবে কেড়ে নেওয়া হয়েছে এবং তাতে দেশের অন্যপ্রান্তের লোকেদের নিষ্প্রিয়তা তাঁকে যন্ত্রণা দিয়েছে। কানন্ন মিডিয়া সাক্ষাত্কারে জানিয়েছেন একসময় ভাবতেন ব্যবস্থার অংশীদার হয়েই ব্যবস্থাকে বদল করতে হবে। অাজ অার সে অাশা তিনি করেন না।  গণতান্ত্রিক পরিসর না থাকা ও জম্মু কাশ্মীর ইস্যুতে নাড়া দেওয়ায় অাগে অাইএএসের চাকরি থেকে ইস্তফা দেন শাহ ফয়সাল। তারপর কান্নন গোপীনাথন। এখন শশীকান্ত সেন্থিল।  দেশজুড়ে দমবন্ধ করা পরিবেশ তৈরি হচ্ছে তার বাইরে থাকতে পাচ্ছেন না তরুণ সরকারি অামলারাও। তবে একের পর এক অাইএএস অফিসারের ইস্তফাকে তাদের অসহিষ্ণতা বলেই কটাক্ষ করছেন বিজেপির সাধারণ সম্পাদক বিএল সন্তোষ।