জিয়াগঞ্জে নিহত শিক্ষক ও তাঁর স্ত্রীর পরিবারের সঙ্গে নবান্নে কথা মুখ্যমন্ত্রীর

0
9

জিয়াগঞ্জে শিক্ষক বন্ধুপ্রকাশ পাল  , তাঁর স্ত্রী  ও সন্তানের খুনের ঘটনায নিহতদে পরিবার CBI তদন্ত দাবি  জানিয়েছিলেন বৃহষ্পতিবার অার  শুক্রবার নবান্নে তাদের ডেকে এনে দেখা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অার তার পর পুলিসি তদন্তে খুশি নিহতদের পরিবারের সদস্যরা। অন্তত মিডিয়ার সামনে এমনটাই জানিয়েছেন তারা। এতদিন অবশ্য কোন এক ব্যক্তি ৫ মিনিটের মধ্যে ৩জনকে খুন করার বিষয় পুলিসের দাবি মানতে নারাজ  ছিলেন তারা। এদিনই খুনের ১০দিন পর নিহত শিক্ষকের বাড়িতে  গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করেন ফরেন্সিক দলের সদস্যরা। ফরেন্সিক দলের দাবি এতদিন পরে এলেও অনেক নমুনায় তারা সংগ্রহ করতে পেরেছেন।

 মঙ্গলবারই পুলিস সুপাররে দাবি করেছিলেন গ্রেফতার হওয়া উত্পল বেহরা স্বীকার করেছেন খুনের ঘটনা। খুনের কারণ হিসাবে পুলিস সুপার জানিয়েছেন নিহতের কাছে বিমা করানোর জন্য টাকা দিলেও তার রশিদ না দেওয়া তিক্ততা তৈরি হয়েছিল। টাকা ফেরত চাইলে তাকে গালিগালিজ করেছিলেন বন্ধুপ্রকাশ। অারে তাতেই ক্ষিপ্ত হয়ে প্রতিশোধ নিতেই পরিকল্পনা করে শিক্ষককে খুন করেন উত্পল। চিনে ফেলায় শিক্ষকের স্ত্রী ও পুত্রকেও হত্যা করেন উত্পল। যদিও পুলিসের এই দাবি মানতে নারাজ উত্পলের মা। তিনি দাবি করেছেন তার ছেলে নির্দোষ। নিহত বিউটি পালের পরিবারের লোকজনও পুলিসের দাবি মানতে নারাজ। তাদের দাবি এই খুন একজন করতে পারেনা। এর পিছনে অন্য কেউ রয়েছে।

খুনের ঘটনার ৭দিনর মধ্য কিনারা করে ফেলে পুলিস। কিন্তু প্রশ্ন উঠছে তড়িঘড়ি কেস সমাধান করতে গিয়ে কোন ভুল হচ্ছে না তো? এতদিন জানা যাচ্ছিল   নিহত বন্ধুপ্রকাশের এক বন্ধুকে অাটক করে জেরা করছে পুলিস। তার জন্যই নাকি অার্থিকভাবে খারাপ অবস্থায় পড়েছিলেন ওই শিক্ষক। সেই বন্ধু সৌভিক বনিককে পুলিস গ্রেফতার করেছে। তবে খুনের অভিযোগে নয়, প্রতারনার জেরে।

 নিহত বন্ধুপ্রকাশ পালের খুনের ঘটনা রাজনৈতিক চাপানউতোর শুরু হয়েছিল। তা হয়তো অাপাতত থামলো। বিশেষ করে খুনি বলে যাকে ধরা হয়েছে সে মুসলীম না হওয়ায়। যদি  অভিযুক্ত মুসলীম   হতেন তাহলেও সাম্প্রদায়িক উস্কানির চোরাস্ত্রোত চলতো। অামরা অনেকে প্রগতিশীল মানুষই  এখন অপরাধে ধর্মের রঙ খোঁজার চেষ্টা করি। অাপাতত এক্ষেত্রে সেটা হয়তো এখন অার হবে না। তবে খুনের কিনারা করা নিয়ে সংশয় কাটছে না। সত্যি কি একজন ব্যক্তির পক্ষে ৩জনকে ৫ মিনিটের মধ্যে খুন করা সম্ভব? এই প্রশ্নটাই এখন ঘুরপাক খাচ্ছে সকলের মনে। কাউকে অাড়াল করা হচ্ছে না তো?