বিজেপি বিরোধী গণমঞ্চে তৃণমূল চাইলে আসতে পারেঃ সীতারাম ইয়েচুরি

0
37

এ রাজ্যের সিপিএম বিজেপি ও তৃমমূলকে একই বৃন্তের দুই ফল বলে মনে করে। তারা পরিষ্কার করে দিয়েছে এ রাজ্যে বিজেপি বিরোধী কোন আন্দোলনেই তারা তৃণমূলের সঙ্গে যাবে না।তবে সিপিআইএম দলের সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি জানাচ্ছেন এই মুহূর্তে দেশের যা পরিস্থিতি তাতে বিজেপিকে প্রতিহত করতে বিজেপি বিরোধী গণমঞ্চ গড়ে তোলা জরুরি।কোন রাজনৈতিক দলের নাম না করেও বৃহস্পতিবার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে সিপিএমের সাধারণ সম্পাদক বলেন একটা সময় দেশে জরুরি অবস্থা চলাকালীন গণমঞ্চ গড়ে উঠেছিল কেন্দ্রীয় শাসক দলের বিরুদ্ধে।এখনও এ দেশে ভয়ঙ্কর একটা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তার বিরুদ্ধেও দরকার এক শক্তিশালী গণমঞ্চের।শুক্রবার আলিমুদ্দিন স্ট্রিটের পার্টির সদর দপ্তরে এক সাংবাদিক সম্মেলনে সেই সূত্র ধরেই সিপিএমের সাধারণ সম্পাদককে প্রশ্ন করা হয় বিজেপি বিরোধী গণমঞ্চে তিনি কি তৃণমূলকেও নিতে চাইবেন?তাতে ইয়েচুরি বলেন,’তৃণমূলকে কোন আমন্ত্রন তারা করবেন না,তবে গোটা দেশে বিজেপির বিপদ অনুধাবন করে তৃণমূল যদি সেই গণমঞ্চে আসতে চায় তাতে তাঁদের কিছু বলার নেই’তবে একই সঙ্গে তিনি এটাও বলেন এ রাজ্যে তৃণমূলের কাজকর্ম বিজেপির চেয়ে একেবারেই আলাদা কিছু নয়।বিজেপি বিরোধী লড়াই যে আদর্শগতভাবে বিজেপি বিরোধী না হলে সম্ভব নয় তাও বুঝিয়ে দেন সিপিএম সাধারণ সম্পাদক।

সিপিএমের পলিট ব্যুরোর সদস্য মহম্মদ সেলিম বৃহস্পকিবারই জানিয়ে দিয়েছেন এ রাজ্যে তারা তৃণমূল ও বিজেপি উভয়ের সঙ্গেই সমান তালে লড়াই করতে চান।কোন অবস্থাতেই তারা বিজেপির চেয়ে তৃণমূলকে কম বিপজ্জন বলে মনে করেন না।সেলিমের মতে দিল্লিতে গিয়ে মোদী ও অমিত শাহের সঙ্গে সেটিং করে এসে এ রাজ্যে বিজেপি বিরোধী নাটকের জিগির তোলা কোন দলকে কোন ভাবেই বিশ্বাস করা য়ায় না।মহম্মদ সেলিম আর বলেন এনআরসির আইন সংশোধন হয় ২০০৩ সালে মমতা তখন কেন্দ্রের মন্ত্রী।সেই নতুন আইনের উপর ভিত্তি করেই এখন বিজেপি মুসলিম খেদাও অভিযান চালাচ্ছে,তাই এই এনআরসি ভীতির দায় মমতাকেও নিতে হবে।দলের সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি অবশ্য এদিনও বলেন এ রাজ্যে রাজনৈতিক কৌশল বা কর্মসূচি চূড়ান্ত করার দায়িত্ব অবশ্যই রাজ্য নেতৃত্বের।কেগ্রেসের সঙ্গে বামেদের জোটবন্ধনের বিষটাও রাজ্যস্তরেই চূড়ান্ত করতে হবে বলেন সীতারাম ইয়েচুরি।