সিবিআই দফতরে ম্যাথু স্যামুয়েল

0
4

পুজোর ছুটি মিটতেই নারদা স্ট্রিং অপারেশনের প্রধান হোতা ম্যাথু স্যামুয়েল সিবিআইয়ের দপ্তরে গিয়ে সিবিআই অফিসারদের মুখোমুখি হলেন।এদিন তাঁকে দীর্ঘ সময় ধরে জেরা করেন সিবিআই অফিসাররা।নারদা নিয়ে নানা তথ্য গোয়েন্দাদের ম্যাথু জানিয়েছেন বলে জানা যাচ্ছে।সিবিআই সূত্রে জানানো হয়েছে এই সমস্ত তথ্য সিবিআিই অফিসাররা পর্যায়ক্রমে যাচাই করবেন।কে বা কারা টাকা নিয়েছেন,কোন সুত্রে টাকা নিয়েছেন সে বিষয়ে ম্যাথু সিবিআই অফিসারদের জানিয়েছেন বলে খবর।তৃণমূলের অনেক নেতাই তাঁর কাছ থেকে সেই সময় সরাসরি টাকা নিয়েছিলেন বলে তিনি সিবিআইকে জানিয়েছেন।এর আগে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি পরিষ্কার জানিয়েছিলেন যে মুকুল রায় সরাসরি তাঁর কাছ থেকে কোন টাকা নেন নি,তবে শোভন চট্টোপাধ্যায় সহ একাধিক তৃণমূল নেতা তাঁর কাছ থেকে ঘুষ নিয়েছিলেন তাঁর কম্পানিকে সহায়তা করার আশ্বাস দেওয়ার বিনিময়ে।

প্রসঙ্গত ২০১৬ সালে এ রাজ্যে বিধানসভা ভোটের কিছু আগেই ম্যাথু স্যামুয়েলে এর নারদা স্ট্রিং প্রকাশিত হয়।সেখানে দেখা যায় একাধিক তৃণমূলের মন্ত্রী ও নেতা ইমপেক্স নামের এক কম্পানিকে সহায়তা করার বিনিময়ে ম্যাথু স্যামুয়েল নামক এক ব্যক্তির হাত থেকে টাকার বান্ডিল নিজেদের পকেটে ঢোকাচ্ছেন।ম্যাথুর দাবি ইমপেক্স একেবারেই একটা ফেক কম্পানি যার কথা তিনি এরাজ্যের প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতাদের বলেছিলেন শুধুমাত্র তাঁদের অসততা ও ঘুষ নেওয়ার প্রমাণ সর্বসমক্ষে নিয়ে আসার জন্য।এদিনও সিবিআই দপ্তরে এসে সেই কথাই বলেন ম্যাথু।তিনি জানান সিবিআই অফিসাররা তাঁর কাছ থেকে যে যে সহযোগিতা চাইবেন তিনি তা দিতে রাজি আছেন।তাঁর কাউকে ভয় পাবার কিছু নেই বলেও দাবি করেন নারদা কান্ডের এই প্রধান হোতা।

সিবিআই সূত্রে খবর এর পর সিবিআই কর্তারা নারদা স্ট্রিং অপারেশনের প্রধান হোতা ম্যাথু স্যামুয়েলকে নিয়ে মুকুল রায়ের বাড়িতে যেতে পারেন।ঘটনার পুনর্নিমান করার জন্যই সিবিআই অফিসাররা চাইছেন ম্যাথুকে সঙ্গে নিয়ে মুকুল রায়ের বাড়িতে যেতে।নানা বিষয়ে আর পরিষ্কার হবে বলেই মনে করছেন তদন্তকারী অফিসাররা।আর আগে গ্রেপ্তার হওয়া আপিএস অফিসার মির্জাকে নিয়েও সিবিআই অফিসারদের একটা দল মুকুল রায়ের বাড়তে গেছিলেন।সেখান থেকেও কিছু তথ্য তদন্তকারীদের হাতে এসেছে বলে খবর।এবার সরাসরি ম্যাথুকে নিয়ে আবার সেই একই জায়গায় গিয়ে ঘটনা যাচাই করতে চাইছেন সিবিআই অফিসাররা।নারদা কান্ডের রহস্য সমাধানে এবার যে সিবিআই কোমড় বেঁধে নামতে চাইছে একের পর এক জিজ্ঞাাসাবাদের মধ্য দিয়ে তা পরিষ্কার।তবে অনেকেই বলছে অভিযোগের আঙুল যাঁদের বিরুদ্ধে উঠেছেছিল তাঁদের মধ্যে বেশ কয়েকজনতো এখন বিজেপিতেই,তাই তাদের নিয়ে কী করবে সিবিআই তা নিয়ে ধন্দ থাকছেই।