তেলেঙ্গানার বাস ধর্মঘটের ৪২দিন, রাজ্যসরকারের সঙ্গে বিলয়ের দাবি ছাড়লেন অারটিসির ধর্মঘটিরা

0
45
সাতদিন ডেস্কঃ   তেলেঙ্গানার টিএসঅারটিসি বাস কর্মীদের  ধর্মঘটের  ৪২দিনে পরলো শনিবার। সমাধান সূত্র মিলল না এখনও। সরকার ধর্মঘটিতে সঙ্গে অালোচনা না করার সিদ্ধান্তে অনড়। অার তাই বাধ্য হয়েই রাজ্য সরকারের সঙ্গে অারটিসিকে মিশিয়ে দেওয়ার দাবি থেকে অাপাতত পিছু হঠলেন ধর্মঘটিরা।  শুক্রবার যুক্তমঞ্চের তরফে জানান হয়েছে অাপাতত তারা সরকারে সঙ্গে পরিবহন করপোরেশনের বিলয়ের দাবি অার করছে না। অন্যন্যা দাবিগুলি নিয়ে সরকারের সঙ্গে অালোচনা চাইছে তারা।
ইতিমধ্যেই  ধর্মঘট চলাকালীন ৫জন অারটিসি কর্মী অাত্মহত্যা করেছেন।    তবুও  ৪৮ হাজার বাস কর্মীর দাবি মানাতো দূরের কথা তাদের সেপ্টেম্বর মাসের বেতন পর্যন্ত দেয়নি সংস্থা।।  টিএসঅারটিসি অাদালতকে জানিয়েছে সেপ্টেম্বরের বেতন দেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ২২৪ কোটি টাকা তাদের কাছে নেই। রাজ্য সরকারও হাত উপুড় করে দিয়েছে। হাইকোর্ট পুরো বিষয়টি সমাধানের জন্য সুপ্রিম কোর্টের ৩ সদস্যকে দিয়ে কমিটি গঠনের প্রস্তাব দিয়েছে তেলেঙ্গানা হাইকোর্ট।
  এর অাগে রাজ্য সরকারের তরফে হাইকোর্টে জানান হয় যে তেলেঙ্গানা রাজ্যঅারটিসির পক্ষ থেকে এক রিপোর্টে রাজ্যকে জানান হয়েছে কর্মীদের ২১টির মধ্যে ১৬টি দাবি মেনে নিতে প্রয়োজন ৪৬ কোটি ২০ লক্ষ টাকা। সেই টাকা অারটিসির কাছে নেই। রাজ্যে সরকারও সেই টাকা দিতে পারবে না। রাজ্যের দাবি তারা ইতিমধ্যেই অারটিসিকে  ৪২৩৫ কোটি টাকা দিয়ে দিয়েছে। অার টাকা দিতে পারবে না। যদিও  ২০১৫ সালে ১৫ কোটি টাকা সরকারি অর্থ খরচ করে যজ্ঞ করার সময় কেসিঅার এর টাকার অভাব হয়নি। মুখ্যমন্ত্রী তিরুমালার ভেঙ্কটেশ্বর মন্দিরে ৫ কোটি টাকার সোনার গয়না  দান করার সময় রাজকোষের কথা ভাবেননি। এই তালিকা অারো দীর্ঘ। শুধু তাই নয়, ৫০০ কোটি টাকার বাজেটে মুখ্যমন্ত্রী অাবাস নির্মাণের জন্য  ইতিমধ্যেই ৩৫ কোটি টাকা খরচ করতেও অসুবিধা হয় না সরকারে। শুধু টাকা নেই ৪৮ হাজার অারটিসি বাস কর্মীর জন্য।
গত ৫ অক্টোবর থেকে TSRTC কে রাজ্য সরকারের সঙ্গে মিশিয়ে দেওয়ার দাবি সহ বেশ কয়েকটি দাবি নিয়ে ধর্মঘটে নেমেছেন ৪৮ হাজার অারটিসির বাস কর্মী। ইতিমধ্যেই তাদের ছাঁটাই করার কথা জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী কেসিঅার। যদিও কেন্দ্র জানিয়েছে অারটিসির কোন সাংবিধানিক অস্তিত্ব নেই। তাই রাজ্য সরকারের তার কর্মীদের ছাঁটাইয়ের প্রশ্ন ওঠে না বলে মনে করছেন অান্দোলনে থাকা কর্মীরা।এবার মূল দাবি থেকে ধর্মঘট করা কর্মীরা সরে অাসার পরও কেসিঅারের অনড় মনোভাবের পরিবর্তন হয় কিনা সেটাই এখন দেখার।

সূত্র দ্য নিউজ মিনিট