খুনের হুমকি দেওয়ার পরও দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে কেন পুলিসি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না?

0
606

সাতদিন ডেস্কঃ   নাগরিকত্ব অাইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভকারীদের   সরাসরি খুনের হুমকি দেওয়ার পরও  দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে পুলিসি ব্যবস্থা নে‍ওয়া উচিত বলে মনে সিপিএম নেতা তথা বিশিষ্ট অাইনজীবী বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য। তবে তিনি রাজ্য সরকারের থেকে কোন প্রত্যাশা করেন না। অন্যদিকে  মানবাধিকার অান্দোলনের পরিচিত মুখ সুজাত ভদ্র মনে করেন এই ধরণের মন্তব্যের জন্য দিলীপ ঘোষের মত অযোগ্য সাংসদকে অবিলম্বে প্রত্যাহার বা রাইট টু রিকল করা উচিত ভোটারদের।

 রবিবার রাণাঘাটের এক সভায় প্রকাশ্যে খুনের হুমকি দেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। রবিবার রাণাঘাটের  ওই সভায় দিলীপবাবু বলেছেন ক্ষমতায় এলে সরকারি সম্পত্তি ধ্বংসকারীদের তারা গুলি করে মারবে। বিজেপির রাজ্য সভাপতি জানিয়েছেন যেখানে তাদের সরকার অাছে সেখানে শয়তানদের গুলি করে কুকুরের মত মারা হয়েছে, সরকারি সম্পত্তি ধ্বংসের জন্য জরিমানাও করা হয়েছে। এরাজ্যে কাউকে গ্রেফতার পর্যন্ত করা হয়নি। দিলীপবাবুর হুমকি   এখানে অাসবে , থাকবে , খাবে অার সরকারি সম্পত্তি ধ্বংস করবে, ক্ষমতায় এলে অামরা লাঠি মারব, গুলি করব , জেলে পাঠাব। তৃণমূল অবশ্য দিলীপবাবুর এই মন্তব্যকে সেরকম গুরুত্ব দিতে নারাজ। তৃণমূল নেতা পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেছেন দিলীপ বাবুর মস্তিষ্কের সুস্থ নেই, চিকিত্সার দরকার।

দিলীপ ঘোষের এধরণের বক্তব্য নতুন নয়। যাদবপুররে পড়ুয়াদের জুতিয়ে ঠিক করে দেওয়া  থেকে শুরু করে পুলিস ঠাঙানোর নানা বিধান দিলীপ বাবু নানা সময় দিয়েছেন। অথচ রাজ্য সরকার তার বিরুদ্ধে কোন দিন কোন ব্যবস্থা নেয়নি। খড়গপুরে একটি খুনের মামলায় তার নামে অভিযোগও উঠেছিল। এহেন দিলীপ বাবুর খুনের হুমকিকে শুধু মাথার গন্ডগোল বলে লঘু করার চেষ্টা করছেন তৃণমূল নেতারা। এরাজ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কার্টুন অাঁকলে বা মিম করলে গ্রেফতার করা হয় অথচ খুনের হুমকির পরও একজন সাংসদের বিরুদ্ধে রাজ্য প্রশাসন কোন ব্যবস্থা নিতে চাইছে না। বিষয়টি গভীর মস্তিষ্ক প্রসৃত। প্রশ্ন কার?

ছবি অার্কাইভ থেকে