জনগণের বিরোধিতাকে উপেক্ষা করে অনলাইনে NPR এর তথ্য সংগ্রহের ভাবনা চিন্তা কেন্দ্রের

0
201

সাতদিন ডেস্কঃ  দেশজুড়ে CAA NPR-NRC এর বিরোধিতার মধ্যে এবারের এনপিঅার  তথ্য সংগ্রহ যে কঠিন তা সরকার বিলক্ষণ বুঝেছে। কিন্তু তা থেকে সরতে নারাজ তারা তাই এবার ২০২০ সালের এনপিঅার এর তথ্য সংগ্রহ অনলাইনে করার ভাবনাচিন্তা শুরু করেছে কেন্দ্র। এমনটাই জানাচ্ছে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের ওয়েবসাইট।

তবে এইভাবে এনপিঅার এর তথ্য অাদায় করা যাবে তাঁদেরই যারা ২০১৫ সালে এনপিঅার এ অাধার নম্বর যুক্ত করেছেন। সেই সময় ৬০ কোটি নাগরিকের অাধার নম্বর এনপিঅার এ তোলা হয়েছিল। ইতিমধ্যেই রেজিস্ট্রার জেনারেল ১১৫ কোটি  মানুষের এনপিঅার তথ্য ডিজিটাইসড করে ফেলেছে। ২০২০ সালের ১ এপ্রিল থেকে এই এনপিঅার এর তথ্য ফের নেওয়া শুরু হবে। এবার অাধার নম্বরও চাওয়া হবে। এনপিঅার জনগণনা বা সেন্সাস নয়। জনগণনা শুরু হবে ২০২১ সালে।

NPRকে  NRC এর প্রথম ধাপ বলেছে সরকার। যদিও এখন মুখে তা অস্বীকার করছেন কেন্দ্রের মন্ত্রীরা। যেহেতু এনপিঅার এনঅারসি ও সিএএ নিয়ে দেশজুড়ে বিরোধিতা চলছে এবং অসহযোগীতার ডাক দেওয়া হয়েছে নাগরিক সমাজ ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলির তরফে তাই সরকার ঘুর পথে এনপিঅার এর তথ্য সংগ্রহ করতে চাইছে বলে মনে করছেন অনেকে। হঠাত্ই ব্যাঙ্কেরKYC এর ক্ষেত্রে এনপিঅার চিঠিকে বৈধ নথি হিসেবে গণ্য করা হয়েছে।

বহু অবিজেপি সরকারই সিএএ বিরোধি প্রস্তাব বিধানসভায় পাশ করিয়েছে। কিন্তু তাদের রাজ্যে  এনপিঅার  হবে না তা খোলাখুলি বলছে না।শুধুমাত্র কেরল ও পশ্চিমঙ্গ শুধুমাত্র জানিয়েছে তাদের রাজ্য এনপিঅার করবে না। যদিও এরাজ্যে এনপিঅার এর কাজ স্থগিত রাখার কথা সার্কুলার দিয়ে ঘোষণা করেছে, বাতিলের নয়।

 এবারের এনপিঅার এ বাবা মায়ের জন্মস্থান ও জন্মতারিখ বিষয় যে নতুন প্রশ্নগুলি  যুক্ত করা হয়েছে সেগুলিকে বাদ দেওয়ার কথা বলা হচ্ছে। এটা চেপে যাওয়া হচ্ছে ২০০৩ সালে বাজপেয়ী জমানায় তৈরি নাগরিকত্ব অাইনে এনঅারসির কথা বলা হয়েছিল। ২০১৮- ১৯ সালের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের বার্ষিক রিপোর্টে বলা অাছে এনপিঅার হচ্ছে এনঅারসির প্রথম ধাপ। তাই সরকার মুখে যাই বলুক এনপিঅার এর মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহ করে এনঅারসি করার দিকেই যে এগোতে চাইছে জনগণের সেই অাশঙ্কাকে উড়িয়ে দেওয়া যায় না।