JDU থেকে বহিষ্কৃত প্রশান্ত কিশোর , কিন্তু কেন?

0
58

সাতদিন ডেস্কঃ নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলে( বর্তমানে অাইন) দলের অবস্থান, বিশেষ করে বিলকে নীতীশ কুমারের সমর্থন করার বিরুদ্ধে  মুখ খুলেছিলেন প্রশান্ত কিশোর। এবার তাঁকে দল থেকে বহিষ্কার করল জেডিইউ।সংশোধিত নাগরিকত্ব অাইন নিয়ে যখন নীতীশ প্রশান্তের মধ্যে বনিবনা হচ্ছিল না সেই সময় অমিতশাহকেও কটাক্ষ করেন প্রশান্ত কিশোর। এর পরই নীতীশ জানান অমিত শাহের অনুরোধেই প্রশান্ত কিশোরকে তিনি দলে নিয়েছিলেন। নীতীশের এই দাবিকে মঙ্গলবার মিথ্যে বলে কটাক্ষ করেন প্রশান্ত কিশোর। এর পর প্রশান্ত কিশোরকে দরজা দেখাতে অার দেরি করেনি জেডিইউ। ২০১৮ সালে জেডিইউতে যোগ দেন প্রশান্ত কিশোর। হয়ে ওঠেন দলের নম্বরটু। এক সময় মোদির চায়ে পে চর্চার জনক প্রশান্তের হঠাত্ করে সিএএ বিরোধিতায় এতটা সরব হলেন কেন তা বুঝে উঠতে পারছেন না অনেকে।

সিএবি সংসদে পাশ হওয়ার সময়   প্রশান্ত কিশোর টুইট করে বলেছিলেন  নাগরিকত্ব সংশোধন বিলকে সমর্থন করার অর্থ বিহারের ভোটারে সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করা। এক  টুইট বার্তায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল সমর্থন  করায়   নাম না করে জেডিইউ নেতার বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছিলেনএকদা  নীতীশ ঘনিষ্ঠ প্রশান্ত কিশোর।

লোকসভার  পর রাজ্যসভাতেও এই বিল সমর্থনের সিদ্ধান্ত নেন নীতীশ কুমার। অার তাই প্রশান্ত কিশোর প্রশ্ন করেছেন যাদের দলের  সংবিধানে প্রথম পৃষ্ঠায় ধর্মনিরপক্ষেকতা কথাটি ৩বার লেখা রয়েছে তারা  কী করে ধর্মের ভিত্তিতে অানা এই বিলকে সমর্থন করতে পারে। দলের অারেক নেতা পবন বর্মাও নীতীশ কুমারকে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল সমর্থনের বিষয়টি পুনরায় বিবেচনার অার্জি জানিয়েছিলেন। তাঁকেও এদিন দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।একটা প্রশ্ন রয়েই যাচ্ছে প্রশান্ত কিশোরকে জেডিইউ বহিষ্কার করল না প্রশান্ত কিশোর দল থেকে বহিষ্কৃত হতে চাইলেন? এর উত্তর পেতে অারো  কয়েকটা দিন হয়তো অামাদের অপেক্ষা করতে হবে।