শিলচরের অধ্যাপক গ্রেফতারিকে স্বৈরাচারি ঘটনা বলে সোচ্চার বাম কংগ্রেস

0
25

সাতদিন ডেস্কঃ- দিল্লি দাঙ্গার প্রেক্ষিতে  প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে অাপত্তিকর মন্তব্য করে ফেসবুক পোস্ট করায় যেভাবে শিলচরের এক কলেজ অধ্যাপক সৌরদীপ সেনগুপ্তকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তার বিরুদ্ধে সরব হয়েছে একযোগে সিপিএম ও কংগ্রেস।সিপিএমের পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী এদিন এ বিষয়ে প্রতিক্রিয়া দিয়ে বলেন,দেশে যে এক চরম স্বৈরাচারি শাসন চালু হয়ে গেছে এই ঘটনা তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছে।স্বাধীন মত প্রকাশের যাবতীয় পরিসরকে অবরুদ্ধ করে দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে বলে মন্তব্য করেন সুজন চক্রবর্তী।সুজনবাবুর দাবি করেন যে কোন গণতন্ত্র প্রিয় মানুষের উচিত এই হিটলারি সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সরব হওয়া।সিপিএমের পক্ষ থেকে তিনি এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করে  সুজনবাবু বলেন মোদীর বিরুদ্ধে ফেসবুকে পোস্ট করলে জেল হবে অধ্যাপকের আবার এ রাজ্যেও কোন অধ্যাপককে ফাটকে পুরে দেওয়া হয় মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কার্টুন প্রকাশ করলে। দিদিভাই ও মোদিভাইয়ের যে কত মিল এই সব ঘটনা বার বার তা দেখিয়ে দিচ্ছে।এই ঘটনার তীব্র নিল্দা করেছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্রও।তিনি জানিয়েছেন বিজেপি যে কোন স্বাধীন মত বরদাস্ত করতে পারে না এই ঘটনা তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল।একজন অধ্যাপকও যেখানে স্বাধীন মত প্রকাশ করলে এরকম হেনস্তার মুখে পড়ছেন সেখানে সাধারণ মানুষ যে কতটা আতঙ্কের মধ্যে কাটাচ্ছেন তা সহজেই অনুমান করা যায় বলে জানান প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি।সোমেন মিত্রও এই স্বৈরাচারি মানসিকতার বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষকে একত্রিত হবার আহ্বান করেন।

এদিকে শিলচরে এই অধ্যাপক গ্রেপ্তারকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে।সোশ্যাল মিডিয়াতেও রীতিমত আলোচিত হচ্ছে এই ঘটনা।কোন প্রতিবাদ করলেই যে বিপদ এগিয়ে আসতে পারে তা নিয়ে সরব অনেকেই।কোনরকম স্বাধীন ভাবনার পরিসর আর থাকবে কিনা তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করে নানা মন্তব্য ফেস বুকে ঘুরতে শুরু করেছে।তবে এরই মধ্যে বিজেপির রাজ্য নেতারা তাদের সেই চিরাচরিত মস্তানির ঢঙে বলতে শুরু করেছেন যা করা হয়েছে বেশ হয়েছে।বিজেপির রাজ্য সভাপতি একইরকম ঔদ্ধত্য দেখিয়ে বলেছেন প্রধানমন্ত্রীকে যিনি গণহত্যাকারি বলেন তাকে জেলেই পাঠানো উচিত।তবে দিলীপ ঘোষের বক্তব্যকে গুরুত্ব দিতে রাজি নন সিপিএম ছাত্র সংগঠনের নেত্রী মিনাক্ষী মুখোপাধ্যায়,তাঁর মতে,দিলীপ ঘোষদের মত মানুষের ফক্ষে গণতন্ত্র ও স্বাধীান মত প্রকাশের গুরুত্ব বোঝা সম্ভবই নয়,কারণ ওরা হিংসা আর অশিক্ষার ধারক বাহক।যে লোক গরুর দুধ থেকে সোনা পাওয়ার কথা বলেন,যিনি জানেন সহজ পাঠ বিদ্যাসাগরের লেখা তার কাছ থেকে গণতন্ত্র স্বাধীনতা নিয়ে কোন কথা শুনতে না চাওয়াই ভাল।বিজেপির মত ও পথের বিরুদ্ধে তারা যে সর্বাত্মক লড়াই শুরু করবেন সেই বার্তাই দিলেন মিনাক্ষী মুখোপাধ্যায়।সব মিলিয়ে শিলচরে অধ্যাপক গ্রেপ্তারের ঘটনায় রাজ্য রাজনীতি বেশ উত্তপ্তই হয়ে উঠেছে।