সিঁথি থানার পর আর এক থানায় বিনা নোটিশে গ্রেফতারের অভিযোগ

0
24

সাতদিন ডেস্কঃ-সিঁথি থানায় পুলিস হেফাজতে এক ব্যবসায়ির মৃত্যুর জেরে সমালোচনার মুখে পুলিশ প্রশাসন। এই ঘটনায় পুলিশের আইন ভাঙা নিয়ে রাজ্যের মানবাধিকার আন্দোলনের কর্মীরা সোচ্চার হয়ে উঠেছেন। ঠিক তখনই অারেক এক জায়গায় পুলিশের এরকম বেআইনি কার্যকলাপের অভিযোগ উঠল।দক্ষিণ চব্বিশ পরগণার বারুইপুরের বকুলতলা থানার বিরুদ্ধে অভিযোগ সেখানে এক ব্যক্তিকে পাড়ার সাধারণ এক বচসার জেরে থানায় ডেকে এনে দীর্য সময় তাকে থানায় বসিয়ে রেখে পরের দিন তাকে সাজানো কেস দিয়ে কোর্টে পাঠানো হয়।কোর্ট ঐ ব্যক্তিকে জামিন দিলেও তার পুলিশি হেনস্থা নিয়ে সরব হয়েছে ঐ ব্যক্তির পরিবার ও মানবাধিকার সংগঠন এপিডিআরের দক্ষিণ চব্বিশ পরগণা শাখা। এদের পক্ষে আলতাফ আহমেদ জানাচ্ছেন,গত ১৫ তারিখ আচমকাই বাসুদেব মন্ডল নামে এক ব্যক্তিকে বকুল থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।থানায় তাকে কিছু জিজ্ঞাসা করা হবে বলে নিয়ে যাওয়া হয়।বাসুদেব মন্ডল বকুলতলা থানা এলাকার একজন সাধারণ চা ব্যবসায়ী।তার চায়ের দোকান নিয়ে স্থানীয় কিছু লোকের বচসা হয় বলে জানা যায়।সেই বচসার জেরেই থানা বাসুদেব মন্ডলকে ডেকে পাঠায় বলে বাসুদেববাবুর পরিবার জানিয়েছে।এর পরেই বাসুদেববাবুর পরিবারের সঙ্গে তার যাবতীয় যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় পুলিশ।তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে কিনা,তার অপরাধ কি? সে বিষয়ে পরিবারকে দীর্ষ সময় কিছু জানায় নি পুলিশ।১৫ তারিখ গ্রেপ্তার হবার পর ১৬ তারিখ বাসুদেববাবুকে বারুইপুর কোর্টে হাজির করানো হয়।সেখানে তার জামিন হয়।

প্রশ্ন হল পুলিশ এভাবে কাউকে বিনা নোটিশে থানায় নিয়ে যেতে পারে?একটা সাধারণ ঘটনায় পুলিশ কেন আচমকা এতটা সক্রিয় হয়ে উঠল?এপিডিআরের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে পুলিশের কাছে জানতে চেয়েও কোন উত্তর মেলে নি বলে জানা যাচ্ছে।বিষয়টি যে সাধারণ নাগরিকের পক্ষে বিপজ্জন সেটা মনে করিয়ে দিয়ে মানবাধিকার আন্দোলনের কর্মীরা এ বিষয়ে আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি দিচ্ছেন।এ বিষয়ে জানতে চেয়ে আমরা ফোন করেছিলাম বকুলতলা থানায়,তবে বার বার ফোন বেজে যাবার পর,একজন ফোন ধরে নিজের পরিচয় দেন সেই সময়ের ডিউটি অফিসার বলে,তবে তিনি এ বিষয়ে কিছু জানেন না বলে জানিয়ে দেন।সিঁথি থানায় পুলিশি জুলিমবাজির জেরে একটা প্রাণ আচমকাই ঝরে গেছে বলে অভিযোগ তার মধ্যেই আবার বকুলতলা থানার এই জুলুমবাজি দেখিয়ে দিচ্ছে  আইন রক্ষার উর্দি পরে আইন ভাঙার যে সংস্কৃতিতে পুলিশ প্রশাসন অভ্যস্ত হয়ে উঠেছে তা থেকে তাদের বার করে আনতে এখনও অনেক সময় লাগবে।