সুপ্রিম কোর্টের ধমকের পর ১০ হাজার কোটি টাকা এখনই দিতে রাজি এয়ারটেল

0
42

সাতদিন ডেস্কঃ সুপ্রিম কোর্টের ধমকের সঙ্গে সঙ্গে টাকা দিতে রাজি হয়ে গেল এয়ালটেল। ইতিমধ্যেই ১০ হাজার কোটি টাকা টেলকম দফতরকে তারা দিয়েছে বলে সোমবার জানিয়েছে  এয়ারটেল। বাকি টাকা ১৭ মার্চের অাগে তারা শোধ করে দেবে। এয়ারটেলের কাছে সরকারের পাওনা প্রায় ৩৫ হাজার কোটি টাকা মতন। যদি ভোডাফোন সোমবার ২৫০০ কোটি টাকা শোধ করার প্রস্তাব দেয়। সুপ্রিম কোর্ট তা খারিজ করে দেয়। তাদের কাছে সরকারের পাওনা প্রায় ৫৩ হাজার কোটি টাকা।

অাদালতের নির্দেশ মেনে টেলিকম সংস্থাগুলি  সরকারের পাওনা না মেটনোয় ও সেই বিষয় সরকারেরই টেলিকম দফতরের কোন পদক্ষেপ না নেওয়ায় শুক্রবার তাদের তীব্র সমালোচনা করে সুপ্রিম কোর্ট। সর্বোচ্চ অাদালত তার পর্যবেক্ষণে বলেছে দেশে কোন অাইন নেই। সুপ্রিম কোর্টকে তাহলে তুলে দেওয়া হোক। গত বছর অক্টোবর মাসে সরকারের অাবেদনের ভিত্তিতে সুপ্রিম কোর্ট এয়ারটেল ভোডাফোন সহ বেশ কয়েকটি কোম্পানিকে ৩ মাসের মধ্যে সুদ সমেত মোট ১. ৪৭ লক্ষ কোটি টাকা পাওনা মিটিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেয়।

এরপরই কেন্দ্রের নির্দেশ টেলিকম দফতর পাওনা না মেটালেও যাতে ওই কোম্পানিগুলির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়া হয় তার জন্য একটি নির্দেশ জারি করে গত ২৩ জানুয়ারি। অার এতেই চটে যায় সর্বোচ্চ অাদালত। কী করে সুপ্রিম কোর্টের অাদেশ অমান্য করে সরকারের কোন দফতর প্রশ্ন তোলেন বিচারপতি। অাগামী ১৭ মার্চের শুনানির দিনের অাগে যাতে কোম্পানিগুলি সরকারের বকেয়া মিটিয়ে দেয় সে বিষয় কোম্পানিগুলির অাইনজীবীদের বলেছেন বিচারপতি।

গত বছর অক্টোবর মাসে সরকারের বকেয়া মিটিয়ে দেওয়ার সুপ্রিম কোর্টের অাদেশের পর অাইডিয়া ভো‌ডাফোনের তরফে স্পষ্ট করে দেওয়া হয় তাদের পক্ষে ঝাঁপ বন্ধ করা ছাড়া কোন পথ নেই। এর পরই সরকারের তরফে পাওনা মেটানোর জন্য কিছুটা সময় দেওয়া হয়। শুক্রবার অবশ্য অাদালতের কাছে ধমক খেয়ে সেই  নির্দেশ প্রত্যাহার করে নেয় টেলিকম দফতর।

ইতিমধ্যে মোবাইল ও ইন্টারনেট পরিষেবায়  জি‍ও যে একচেটিয়া অাধিপত্য কায়েম করেছে । জিও অাগেই তাদের বকেয়া ১৯৫ কোটি টাকা সরকারকে মিটিয়ে দিয়েছে। সুপ্রিম কোর্টের এদিন নির্দেশের পর মুশকিল বাড়বে ভোডাফোন ও এয়ারটেল। অার যে  সব কোম্পানিগুলির কাছে সরকারের   পাওনা  রয়েছে সেগুলির অনেককটাই ইতিমধ্যেই পাততাড়ি গুটিয়েছে। তাই অনেকে মনে  করছে সুপ্রিম কোর্টের এই কড়া মনোভাবের ফলে  জিও র কিছুটা বাড়তি সুবিধা হবে। তবে সরকারের ঘরেও ঢুকবে কয়েক হাজার কোটি টাকা।