করোনার জেরে এদেশে কি লকডাউন সম্ভব?

0
5

সাতদিন ডেস্কঃ সারা বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এখনও পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ১০হাজারের ছাড়িয়ে গেছে। প্রতিদিনই তা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। ।ভারতে ইতিমধ্যেই করোনার থাবা বসিয়েছে। সংক্রামক এই ভাইরাসের দ্বারা অাক্রান্ত হয়েছেন এদেশের কয়েকশ মানুষ। সংখ্যাটা অাপাতত নগন্য লাগলেও দিন দশেকের মধ্যে ছবিটা পরিষ্কার হবে।এরাজ্যে ইতিমধ্যেও এক অামলার ছেলে করোনায় অাক্রান্ত হয়ে যে দায়িত্বজ্ঞানহীনতার পরিচয় দিয়েছেন তা নিয়ে রাজ্য জুড়ে ছিঃছিঃ পড়ে গেছে। কিন্তু প্রশ্নটা হচ্ছে করনীয় কী?

বিশেষজ্ঞদের মতে সামাজিকভাবে অাইসোলেশনে থাকা।চিদম্বরমতো অাবার দাবি করেছেন চিনের মত এদেশের কয়েকটি শহরে লকডাউন। সত্যি কি এদেশে তা সম্ভব? যেদেশে চৌকির নীচে একটি ও চৌকির ওপর অারেকটি পরিবারের বাস সেখানে অাইসোলেশন কতটা সম্ভব?  ইতিমধ্যে রাস্তাঘাটে লোক কম বেরোচ্ছেন। ফলে কর্মহীন বা রোজগারে টান পড়ছে অনেকেরই।শুধু স্কুল কলেজ বন্ধ করলেই তো চলবে না যারা গণপরিবহণে করে কারখানায়  বা অন্য কোথাও যাচ্ছেন তারাও তো অাশঙ্কার মধ্যেই থাকছেন।

অনেক জ্ঞানীগুনি লোক বলছেন করোনা অাতঙ্ককে ব্যবহার করে সরকার মানুষের মিটিং মিছিল ঠেকাতে চাইছে। তারা বোধ হয় অত্যন্ত সরলীকরণের রাস্তায় হাঁটতে চাইছেন। এদেশে একবার কমিউনিটির মধ্য যদি করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে তাহলে তা ঠেকানো  প্রায় অসম্ভব। বরং সরকার যখন অাইশোলেশনের কথা বলছেন তখন তাদের দায়িত্ব নিতে হবে নাগরিকদের । বিশেষ করে সমাজের অার্থিকভাবে পিছিয়ে থাকা মানুষজনদের। কারণ তাদের পক্ষে অাগামী ১৫ বা ৩০দিনের খাবার মজুত করার মত অর্থ নেই। তাই  করোনাকে রাষ্ট্র  কৌশলে ব্যবহার করছে  বলে অবজ্ঞা করলে তার মাশুল গরীব মানুষদেরই বেশি দিতে হবে।