তৃণমূলের সঙ্গে বোঝাপড়ার অভিযোগ উড়িয়ে তৃণমূল ও বিজেপির চক্রান্ত ব্যর্থ করেই  জয় দাবি বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যের

0
114

 সাতদিন ডেস্কঃ-রাজ্যের শাসক দল ও বিজেপি একটা মিলিত চক্রান্তের চিত্রনাট্য সাজিয়েছিল,ভেবেছিল শেষ বেলায় ঘোড়া কেনা বেচা করে বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যকে রাজ্য সভার সদস্য হওয়া থেকে বঞ্চিত করা যাবে। এই  সব চক্রান্ত নাকি ভেস্তে দিয়েই তিনি জয় ছিনিয়ে নিতে পেরেছেন । অন্তত এমনটাই দাবি করলেন রাজ্যসভায় বাম ও কংগ্রেসের প্রার্থী তথা সিপিএম নেতা  বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য।মঙ্গলবার নির্দল প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দেওয়া দীনেশ বাজাজের হলফনামা ত্রুটিপূর্ণ হওয়ার কারণে বাতিল হয়ে যেতেই রাজ্যসভায় পঞ্চম প্রার্থী হিসেবে বাম-কংগ্রেসের বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়ে যান।এর পরেই রাজ্যসভায় প্রথমবার নির্বাচিত বিকাশবাবু তাঁর প্রথম প্রতিক্রিয়াতে জানান,”প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জিততে পারলে আর ভাল লাগত কারণ সেক্ষেত্রে তৃণমূল ও বিজেপির সখ্যটা আর খুল্লাম খুল্লা করে দেওয়া যেত।তবে নির্বাচনি লড়াইয়ের মত আইনি লড়াইটাও একটা লড়াই সেই লড়াইয়ে জিতে অসাধু উপায়ে রাজ্যসভাতে যেতে চাওয়া একজনকে আটকাতে পেরে ভালই লাগছে। রাজ্য বিজেপি তাদের বিরুদ্ধেই তৃণমূলের সঙ্গে সখ্য করে পঞ্চম আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় নিশ্চিত করার অভিযোগ তুলেছে শুনে বিকাশবাবু সেই অভিযোগকে হাস্যকর বলে উড়িয়ে দেন।তার মতে বিজেপি ও তৃণমূলের বোঝাপড়া গোটা রাজ্যের মানুষের কাছেই পরিষ্কার।ভবিষ্যতেও তারা যে আবার গোপন বোঝাপড়া করবে তা মানুষ দেখতে পাবেন।

    বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যের মতে বাম ও কংগ্রেস এদেশের ধর্মনিরপেক্ষতা ও সাম্প্রদায়িক ঐক্য বজায় রাখতে হাতে হাত রেখে কাজ করবে।মানুষের ্অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে তিনি সাংসদ হিসেবে দায়বদ্ধ থাকবেন বলে দাবি করে বিকাশবাবু জানান দেশ এখন এক কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে তার মোকাবিলা করতেও তিনি সাংসদ হিসেবে দায়বদ্ধ থাকবেন।এ রাজ্য থেকে বামেদের কোন সাংসদ এই মূহুর্তে নেই তাই বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যের এই জয় রাজ্যে বাম কর্মী ও সমর্থকদের উত্সাহিত করবে বলেই ওয়াকিবহাল মহলের মত।বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতে যাওয়ায় রাজ্যসভার নির্বাচনের আর কোন প্রয়োজন রইল না।