লকডাউনে নয় করোনা মোকাবিলায় হার্ড ইমিউনিটির ওপরই অাস্থা রাখতে চাইছেন বিশেষজ্ঞ চিকিত্সক

0
472

সাতদিন ডেস্কঃ করোনা মোকাবিলায়  লকডাইনকেই একামাত্র হাতিয়ার করে নেওয়া হয়েছে এদেশে। দ্বিতীয়বাবের জন্য , অাগামী ৩ মে পর্যন্ত লকডাউনের কথা ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কিন্তু ভারতের জন্য লকডাউন করোনা মোকাবিলার পথ নয় বলে মনে করেন   ন্যাশনল ইন্সটিটিউট অফ এপিডিমিওলজির বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টা ও ভেলোর মেডিক্যাল কলেজের প্রাক্তন অধ্যক্ষ চিকিত্সক জয়প্রকাশ মুলিয়ল।thewireকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে জয়প্রকাশ জানিয়েছেন লকডাউনের সময় অামরা করোনার ভাইরাসকে মোকাবিলা করি না তাঁর থেকে অাড়ালে থাকি মাত্রা। এই পদ্ধতি করোনা অাক্রান্ত বৃদ্ধির হারকে সাময়িক  ঠেকাতে পারে একে পরাস্তা করতে পারে না। লকডাইন তুলে নিলে ফের করোনার প্রকাোপ বৃদ্ধি পাবে। ভ্যাকসিন বাজারে অাসার অাগে পর্যন্ত ১ বছর বা তার বেশি সময়  পর্যন্ত লক‌ডাইন চালালে তবে  এর সুফল পেতে পারি অামরা। ডাঃ মুলিয়ল জানিয়েছেন ভারতের মত দেশে এই পথ বাস্তব সম্মত নয়।

চিকিত্সক মুলাইয়ল জানিয়েছেন ভারতের মত দেশে করোনাকে পরাস্ত করার এক মাত্র পথ হল হার্ড ইমিউনিটির পথে হাঁটা। হার্ড ইমিউনিটি হল এমনকি বিষয় যেখানে অপেক্ষাকৃত তরুণ প্রজন্মকে এই ভাইরাসের মোকাবিলা করতে দিতে হবে। অামেরিকা বা ইউরোপের থেকে অামাদের দেশে জমসংখ্যায় তরুণ অংশ অনেক বেশি।  এতে তাদের মধ্যে একটা অংশের হয়তো সংক্রমণের অাশঙ্কা থাকবে। এর মধ্যে হয়তো  কিছু লোকের সংক্রমণ গুরুতর হবে। তাঁদের মৃত্যুও হতে পারে। তবে এর মাধ্যমে সমাজে ভাইরাসের শক্তি হ্রাস পাবে ও এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হয়ে যাবে ততদিনে। চিকিত্সক মুলাইয়লের মতে এই সময় ৬০ বছর বা তার থেকে বেশি বয়সের  মানুষদের  বাড়ির মধ্যে অালাদা করে রাখতে হবে। তাঁর মতে করোনার বিরুদ্ধে দূরগামী লড়াইয়ে হার্ড ইমিউনিটি ওপরই জোর দিতে হবে।

ডাঃ মুলাইয়লের মতে  ২১ দিনের লকডাউন হয়তো বিষয়ের গুরুত্বকে বোঝাতে সরকার করেছিল। তবে  সরকারের তরফে দ্বিতীয় দফায় লকডাউনের মেয়াদ বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত কি তা হলে ভূল হয়েছে ?  জানতে চাইলে তা এড়িয়ে যান ডাঃ মুলাইয়ল। তাঁর মতে অপেক্ষাকৃত সহজ রাস্তা হাঁটতে চাইছে সরকার। তবে তিনি হার্ড ইমিউনিটি ওপর জোর দিয়েই করোনা মোকাবিলায় বেশি অাস্থাশীল বলে জানিয়েছেন। এই সাক্ষাতকারটি নিয়েছেন  সাংবাদিক করণ থাপার।