খাস কলকাতায় রেশনের দাবিতে সরব হওয়ায় গ্রেফতার এক যুবক, পরে জামিনে মুক্ত

0
105

সাতদিন ডেস্কঃ- রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় রেশনে দুর্নীতির নানা অভিযোগে সরব হচ্ছেন মানুষ। বাদ নেই খাস কলকাতাও। শহরে রেশনে অনিয়মের বিরুদ্ধে সরব হওয়ায় একযুবককে হেনস্তার অভিযোগ উঠলপুলিশের বিরুদ্ধে। নেতাজিনগর থানার বিরুদ্ধে এক যুবককে হেনস্তার অভিযোগে সরব হল মানবাধিকার রক্ষা আন্দোলনের কর্মীরা।অভিযোগ শুক্রবার বাঁশদ্রোণী এলাকার এক বস্তির নাগরিকরা এলাকার রেশন দোকান থেকে সঠিক পরিমান রেশন না পাওয়ায় বিক্ষোভ দেখায়।সেই বিক্ষোভের জেরে শেষ পর্যন্ত রেশন ডিলার ঐ বস্তিবাসীদের সরকার নির্ধারিত পরিমাণের রেশন দিতে বাধ্য হয়।বস্তিবাসীদের এই সরকার নির্ধারিত রেশন দিতে বাধ্য করাতে  সক্রিয় উদ্যোগ নেন এলাকার সমাজ আন্দোলনের কর্মী সৌম্য মন্ডল। শুক্রবারের পর শনিবারও সৗেম্য ও আর কিছু যুবক এলাকায় গিয়ে সরকার নাগরিকদের জন্য কত পরিমান রেশন ধার্য করেছে সে বিষয় মানুষকে অবগত করতে প্রচার চালায়।এই সময় তৃণমূলের স্থানীয় কিছু নেতাদের সঙ্গে সামাজ আন্দোলনের কর্মী ও নকশালপন্থী সংগঠন আরএসএফের সদস্য সৌম্য মন্ডলদের বচসা শুরু হয়।RSFএর অভিযোগ এর পরেই তৃণমূলের নেতাদের সাহায্য করতে এগিয়ে আসে স্থানীয় নেতাজি নগর থানার পুলিস।তারা সৌম্য মন্ডলকে থানায় নিয়ে যান।প্রথমে তাঁকে কিছু জিজ্ঞাসাবাদ করে ছেড়ে দেওয়া হলেও শনিবার দুপুর ৩-৩০ নাগাদ সৌম্য মন্ডলের পাড়া থেকে পুলিশ আবার তাকে থানায় নিয়ে যায় বলে অভিযোগ।এরপর তাঁর ফোন কেড়ে নিয়ে সেটি সুইচ অফ করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এদিন সন্ধের পর জামিনে ছাড়া পান সৌম্য মন্ডল। এমনটাই জানিয়েছেন সৌম্যের সাথী সৃজন।  লকডাউনের পর্যায় রেশনে বেনিয়মের প্রতিবাদের জেরে শহরে সম্ভবত এই প্রথম  কোন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করল পুলিস।

সৌম্য মন্ডলের এক সহযোগি দাবি করছেন শনিবার সকাল থেকে নেতাজিনগর এলাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যে তাদের কতটা রেশন প্রাপ্য তা বুঝিয়ে বলার প্রচার অভিযান চলার সময়ই স্থানীয় তৃণমূলিরা তাদের উপর হামলা করার চেষ্টা করে।নাগরিকের রেশন গায়েব করে দেওয়ার যে রেওয়াজ তৃণমূলিরা শুরু করেছে তাদের প্রচারের ফলে সেই গায়েব প্রক্রিয়া ব্যহত হবে ভেবেই সৌম্য ও তাদের সহযোগীদের উপর তৃণমূলিরা হামলা করতে উদ্যত হয় বলে সৌম্য মন্ডলের সহযোগিদের অভিযোগ।পুলিশ এক্ষেত্রে একেবারে তৃণমূল নেতাদের নির্দেশ মেনে কাজ করছে বলেও অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে।দিন কয়েক আগে হাওড়াতেও পুলিশ অতিসক্রিয় হয়ে এক আরএসএফের কর্মীকে হেনস্থা করেছিল বলে অভিযোগ এর পর আবার নেতাজি নগরেও যারা সাধারণ নাগরিককে তাদের অধিকার বুঝিয়ে দিতে সচেষ্ট তাদেরকেই পুলিশি জুলুমবাজির সামনে পড়তে হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠছে। বিষয়েটিতে পুলিসের বক্তব্য জানতে চেয়ে বারবার নেতাজি নগর থানায় ফোন করা হলে কেউ ফোন ধরে নি।সৌম্য মন্ডলের সহযোগিদের অভিযোগ স্থানীয় তৃণমূল নেতাদের চাপেই  সৌম্য মন্ডল থানায় তুলে নিয়ে গিয়ে গ্রেফতার করে হেনস্তা করেছে পুলিস।

ছবি প্রতিকি, নেট থেকে নেওয়া কল্পক গুহ এর সৌজন্যে