জনতার প্রযুক্তি উদ্যোগে এবার স্বাস্থ্য কর্মীদের জন্য বিশেষ পিপিই তৈরির প্রয়াস

0
110

সাতদিন ডেস্কঃ-করোনা প্রবহে শুধু ফেস বুক পোস্ট বা নিরাপদ দুরত্বে বসে মানুষকে আতঙ্কিত না হওয়ার নিরামিষ বাণী বিতরন করে চুপ থাকাকে বর্জন করে যাদবপুরের পড়ুয়া ও গবেষকদের একাংশ যে মানুষের পাশে দাঁড়াবার প্রয়াস জারি রেখেছেন সে খবর আমরা ইতিমধ্যেই পৌছে দিয়েছিলাম আমাদের পাঠকদের।জানিয়ে ছিলাম করোনার এই ভয়াবহ প্রকোপে মানুষকে সাহায়তা দিতে যাদপপুরের গবেষক ও পড়ুয়াদের কেউ কেউ CAST এর প্রযুক্তিগত সহায়তায় ইতিমধ্যেই তৈরি করে ফেলেছেন ত্রিস্তরীয় মাস্ক।যা তারা ইতিমধ্যেই খুব কম দামে বা বিনামূল্যে গরিব ও প্রান্তিক মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে শুরু করেছেন।যাদবপুরের পড়ুয়ারা নিজেদের এই উদ্যোগকে চিহ্নিত করেছেন পিপিলস্ ইনিসিয়েটিভ  ফর টেকনোলজি বা জনতার প্রযুক্তি উদ্যোগ বলে।এবার শুধু মাস্ক তৈরিতে আটকে না থেকে এঁরা শুরু করলেন এক বিশেষ প্রকার পিপিই তৈরি করার উদ্যোগ,যা সাধারণ স্বাস্থ্য কর্মী ও করোনা কবলিত এলাকায় যাওয়া মানুষজনদের নিরাপত্তা দিতে পারবে।তবে উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে পরিষ্কার জানানো হয়েছে যে পিপিই বলতে একেবারে করোনা রোগীদের চিগিত্সা করতে ডাক্তারদের ও নার্সদের যা ব্যবহার করা অপরিহার্য সেই পিপিই তারা তৈরি করছেন না।তারা যা করছেন তা হল  করোনা কবলিত এালাকায় যেতে বাধ্য হওয়া মানুষজনদের নিরাপত্তা দিতে একধরনের আপাত প্রতিরোধক সরঞ্জাম।

উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে এই কঠিন সময়ে করোনা কবলিত এলাকায় যেতে বাধ্য হচ্ছেন স্বাস্থ্য কর্মী ও একাধিক অনলাইনে জিনিসপত্র সরবরাহ করা মানুষজন তাদের সংক্রমণের হাত থেকে রক্ষা করতে পারে এই বিশেষ পিপিই।দুই লেয়ারের এই বিশেষ পিপিই পরিষ্কার করে আবার ব্যবহার করা সম্ভব বলে দাবি করছেন উদ্যোক্তারা।এই পিপিই সাধারণ ভাবে করোনার সংক্রমণকে প্রতিহত করতে পারবে বলেই মনে করছেন যাদবপুরের ছাত্ররা।উদ্যোক্তাদের পক্ষে অরিত্র রায় মিত্র জানিয়েছেন,এই পিপিই কোনভাবেই ডাক্তার বা নার্সদের জন্য অপরিহার্য পিপিই নয় এটা সাধারণ মানুষকে করোনা সংক্রমণের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য তাদের একটা উদ্যোগ।তারা বিষয়টি বিস্তারিত এখনই বলতে চাইছেন না তবে তাদের ফোন নম্বর দেওয়া থাকছে কেউ যদি জানতে বা এটা নেবার জন্য আগ্রহী হয় তবে যোগাযোগ করতে পারেন-উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে দুটো যোগাযোগ নম্বর দেওয়া হয়েছে-(১)অরিত্র রায় মিত্র-ফোন-7044634674 ও (২)কমলেশ রায় -ফোনঃ 9903305365।এই নম্বরে ফোন করে নিলে বিস্তারিত জানা যাবে।এই বিশেষ পিপিইর দামও কম রাখার কথা ভাবা হয়েছে গরিব ও সাধারণ মানুষের স্বার্থে।এই বিশেষ পিপিইর সাহায্য নিয়ে এলাকায় এলাকায় যেসব ডাক্তাররা করোনার ভয়ে চেম্বার বন্ধ করে ঘরে বসে আছেন আর চরম দুরবস্থার মধ্যে পড়েছেন সাধারণ মানুষ,সেই সব ডাক্তারবাবুরাও এই পিপিইর সাহায্যে সংক্রমণের ভয় এড়াতে পারেন কিনা সে বিষয় কথা বলে দেখতে পারেন যাদবপুরের এই ব্যতিক্রমী গণ প্রযুক্তির উদ্যোক্তাদের সঙ্গে।যাদবপুরের এই কতিপয় পড়ুয়া ও গবেষকের এই প্রয়াস প্রমাণ করছে এই আকালেও কেউ কেউ থাকেন যারা মানুষের হাত ধরতে চায়,মনুষ্যত্বের অনুভূতিটাকে ছড়িয়ে দিতে চান সমাজের সর্বস্তরে।জনতার প্রযুক্তি উদ্যোগের সাফল্য কামনা করা তাই মনুষ্যত্ব রক্ষারই দায় হয়ে ওঠে।