রাজ্যে করোনায় মৃতের সংখ্যা ১৩৩ জানাল কেন্দ্র, মানতে নারাজ রাজ্য

0
1046

সাতদিন ডেস্কঃ করোনায় মৃতের সংখ্যা নিয়ে এরাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে সত্য গোপন করার অভিযোগ উঠছিল। মঙ্গলবার  কেন্দ্রের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণের তরফে প্রকাশ করা তথ্যে জানান হয়েছে এরাজ্যে ৪ মে পর্যন্ত করোনায় মৃতের সংখ্যা ১৩৩। মনে করা হচ্ছিল এই তথ্য রাজ্যের পাঠান। মঙ্গলবার  স্বাস্থ্য দফতরের যুগ্ম সচিব লভ অাগরওয়াল  সাংবাদিকদ বৈঠকে জানিয়েছেন সময়মত করোনায় মৃত্যুর বিষয়টা রিপোর্ট হওয়া উচিত বলে রাজ্যকে বোঝানোর পর তারাই এই তথ্য কেন্দ্রেকে  দিয়েছে। কিন্ত  বিষয়টি তা নয়।

 

৪ মে রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতরের তরফে জারি করা বুলেটিনে বলা হয় রাজ্যে ৬১জনের মৃত্যু হয়েছে করোনায়, অার ৭২জন করোনা পজিটিভ রোগী মারা গেছেন কোমরবিটির কারণে। অর্থাত্ অন্য রোগে।  অথচ কেন্দ্রের জারি করা তথ্য থেকে জানা যাচ্ছে ৪ মে পর্যন্ত করোনায় মৃতের সংখ্যা ১৩৩। কেন্দ্রের অাধিকারিকের বক্তব্যের পর মনে করা হচ্ছিল দেরিতে হলেও করোনায় মৃতের সংখ্যা নিয়ে স্বচ্ছতা এলো। কিন্তু সেই ভুল ভেঙে দিলেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্র সচিব অালাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। মঙ্গলবার তিনি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন রাজ্যে ৪ মে পর্যন্ত করোনায় মৃতের সংখ্যা ছিল ৬১। পরে  মারা গেছেন অারো ৭জন। তাই বর্তমানে রাজ্যে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৬৮।

প্রশ্ন উঠছে করোনায় মৃতের সংখ্যা নিয়ে কেন্দ্র ও রাজ্যের প্রকাশ করে তথ্যে এত বড় ফারাক কেন?  রাজ্য করোনা পজিটিভ হলেও মৃত্যুর কারণ কোমরবিটি বলে অালাদা করে দেখাচ্ছে অথচ কেন্দ্রের  পরিবার ও স্বাস্থ্য কল্যাণ দফতর মৃত ব্যক্তি করোনা পজি‌টিভ হলেই তাকে করোনায় মৃত বলে উল্লেখ করছে। এদের ওয়েবসাইটে জানান হয়েছে  দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যার ৭০ শতাংশের অধিকেরই মৃত্যু হয়েছে কোমরবিটির কারণে। তাহলে রাজ্য এখনও কী করে কোমরবিটির কারণে মৃত্যুকে করোনা মৃত্যু বলে জানাচ্ছে না?

 করোনায় মৃতের সংখ্যা   রাজ্য সরকার যে গোপন করছে তা স্পষ্ট হয়ে যায় গত সপ্তাহের  বৃহষ্পতিবার (৩০ এপ্রিল)। এই দিন নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যসচিব বলেন ডেথ  অডিট কমিটির রিপোর্ট অনুযায়ী এরাজ্যে করোনায় মৃতের সংখ্যা এখন ৩৩। সেই সঙ্গে  মুখ্যসচিব জানিয়েছিলেন ডেথ অডিট কমিটির কাছে ১০৫টি করোনা পজি‌টিভ মৃত্যুকে রেফার করা হয়েছিল। বাকিদের মৃত্যুর কারণ করোনা নয় বলে তারা জানিয়েছে। অন্য কোন রোগের কারণে করোনা অাক্রান্তদের মৃত্যু ঘটেছে বলে মত ডেথ অডিট কমিটির। এর  অাগের সপ্তাহে এরকমই তথ্য দিয়ে তিনি বলেছিলেন এরাজ্যে ৫৭জনের মৃত রোগী করোনা পজিটিভ ছিলেন তবে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ১৮জনের বাকিরা করোনা পজিটিভ থাকলেও তাঁদের মৃত্যুর কারণ অন্যরোগ।

ঘটনার সূত্রপাত  এপ্রিলের  প্রথম দিকে যখন স্বাস্থ্য অাধিকারিকদের  তরফে সাংবাদিক সম্মেলনে জানান হয়েছিল রাজ্য করোনায় মৃতের সংখ্যা ১০। এর পর তড়িঘড়ি মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেন করোনায় রাজ্যে মৃত ১০ নয় ৭। বাকি৩জনের অন্যকোন  রোগের কারণেও মৃত্যু হয়ে থাকতে পারে। এর পর সামনে অাসে করনো ডেথ অডিট কমিটি। এই কমিটির ছাড়পত্র ছাড়া এরাজ্যে করেনায় মৃত্যু হয়েছে কিনা তা অার চিকিত্সকেরা বলতে পারছিলেন না। সেই নিয়ে নানা মহলে নানা প্রশ্ন উঠছিল। তথ্য চাপা দেওয়ার অভিযোগ উঠছিল রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে। সেদিন সেই সংশয়ের উত্তর দিয়েছিলেন মুখ্যসচিব।

কেন্দ্রের বিরুদ্ধে টেস্ট কম করে অাক্রান্ত কম দেখানোর অভিযোগ উঠছে। রাজ্যের বিরুদ্ধে কম টেস্টের পাশাপাশি করোনা অাক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা চেপে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। সেই অভিযোগ এখন সত্যি প্রমাণিত হলেও মানতে নারাজ রাজ্য। এই অাবহে কি সুষ্ঠুভাবে করোনা মোকাবিলা সম্ভব? রাজ্যে করোনা পজিটিভ থাকা সত্ত্বেও যে ৯৮ জনের মৃত্যু করোনায় হয়নি  বলা হচ্ছে তাঁদের শেষকৃত্যের সময় কি সতর্কতা মানা হয়েছিল যা কোন করোনা রোগীর মৃত্যুর ক্ষেত্রে করা হয়ে থাকে? যদি না হয়ে থাকে তাহলে কি সংক্রামিত হওয়ার অাশঙ্কা বেড়ে গেল না?  অাসলে কেন্দ্র বা রাজ্য কেউই বোধ হয় সঠিক তথ্যটা নাগরিকদের সঙ্গে শেয়ার করতে চান না। এক অর্ধসত্যের পরিবেশ তৈরি করে নিজেদের পিঠ নিজেরাই চাপড়াতে চান। লকডাউনকে হাতিয়ার করে করোনার থেকে মানুষকে বেশি দমিয়ে রাখতে সক্রিয় সব রঙের শাসকেরা। এতে অার যাই হোক করোনা মোকাবিলা করা সম্ভব নয়। এটা সরকারগুলোও জানে!

ছবি প্রতীকী ,নেট থেকে নেওয়া