অচিরেই বিচার বিভাগ বিজেপির ইচ্ছের প্রতিধ্বনি করবে আশঙ্কা বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যের

0
642

সাতদিন ডেস্কঃ সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ এর বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে তিনি পরিষ্কার বলেছিলেন,দেশের প্রধান বিচারপতির আসনে বলে লোকটা স্রেফ বিজেপির দালালি করছেন।বলেছিলেন লোকটা ভারতের সংবিধানের সঙ্গে চরম বিশ্বাসঘাতকতা করে দেশের শাসক দলকে তুষ্ট করছেন।এটাও বলেছিলেন রঞ্জন গগৈ এর সঙ্গে বিজেপির হয়তো বা কোন গোপন বোঝাপড়া হয়েছে।বিশিষ্ট আইনজীবী ও সিপিআইএমের রাজ্যসভার সদস্য বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যের সেই বিস্ফোরক অভিযোগ অনেকটাই সত্য বলে পরিগনিত হয় যখন দেখা যায় অবসর নেওয়ার প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই রঞ্জন গগৈ আবার বিজেপির সহায়তায় রাজ্যসভায় বিশেষভাবে জায়গা করে নেন।নিজে আইনজীবী হয়েও বিচারবিভাগের দুর্নীতি ও নিরপেক্ষতা শূণ্য দৃষ্টিভঙ্গির সমালোচনা করতে বিকাশবাবু কখনোই কুন্ঠা বোধ করেন না।এবারও একইরকম কুন্ঠাহীন ভাবে জানিয়ে দিলেন এদেশের বিচার বিভাগকে ধ্বংস করার যাবতীয় আয়োজন শুরু করে দিয়েছে বিজেপি।তাঁর আশঙ্কা বিচার বিভাগ অচিরই কেন্দ্রীয় শাসক দলের ইচ্ছের প্রতিধ্বনি করবে।যে ভাবে গোটা দেশে লকডাউন পর্বে একের পর এক মানবাধিকার কর্মীদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে,তাদের জামিন অগ্রাহ্য করা হয়েছে তাতে পরিষ্কার বিজেপির ফ্যাসিবাদী মানসিকতাকেই প্রশ্রয় দিতে উদগ্রীব দেশের বিচারবিভাগ।সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিরা কেন্দ্রীয় শাসক দলের নিয়ন্ত্রনের আওতায় চলে গেছেন বলে আশঙ্কা বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যের।

জামিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণারত পড়ুয়া সাফুরা জারগারকে যেভাবে গ্রাপ্তার করা হয়েছে,যে যুক্তিতে তাঁর জামিন বার বার আগ্রাহ্য করা হয়েছে তাতে আতঙ্কিত বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য বলেন,’দিল্লি কোর্ট বলছে সন্তান সম্ভবা হলেই তাকে জামিন দিতে হবে তার কোন মানে নেই।বিষয়টা তো সন্তানসম্ভবা হওয়া বা না হওয়ার নয়।বিষয়টা হল যে কারণে তাকে গ্রাপ্তার করা হয়েছে সেই হিংসায় ইন্ধন দেওয়ার কোন প্রমাণ আদালতের কাছে আদৌ আছে কি না?সাফুরাকে কোনভাবেই ইউএপিএ তে গ্রেপ্তার করা যায় কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন তুলবে না কেন কোর্ট?আর তা ছাড়া দিল্লিতে যে সমস্ত বিজেপি নেতা গুলি করা থেকে সাম্প্রদায়িক স্লোগান দিলেন তাদের বিরুদ্ধে কোর্ট বা পুলিশের কোন বক্তব্য নেই কেন?’বিকাশবাবুর মতে এসবই প্রমাণ করছে এদেশে প্রশাসন ও বিচারবিভাগ ক্রমশ শাসক দলের সুরের প্রতিধ্বনিই করবে।তাঁর মতে ফ্যাসিবাদ এভাবেই সবকিছু গ্রাস করে একমুখি আগ্রাসন নামিয়ে আনে।বিজেপি দেশকে সে পথেই নিয়ে যেতে চাইছে।দেশের মানুষকে এর বিরুদ্ধে সচেতন করে না তুলতে পারলে অচিরেই আমরা ভয়াবহ বিপদের সম্মুখিন হব বলে আশঙ্কা বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যের।