অক্সফোর্ডের তৈরি ভ্যাকসিন সফল হলেও ২ বছর লাগবে দেশের সব ব্যক্তিকে তা দিতে

0
87

সাতদিন ডেস্কঃ করোনার ভ্যাকসিনের দিকে এখন তাকিয়ে সারা দুনিয়ার সঙ্গে  গোটা দেশ। দৌড়ে সব থেকে এগিয়ে অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনিকার কোরানার ভ্যাকসিন। ভারতে তা তৈরি করবে সিরাম ইন্সটিটিউট। যদি সব ঠিকঠাক চলে তাহলে অাগামী বছরের শুরুর দিকে হয়তো মিলতে পারে এই ভ্যাকসিন। তবে এদেশের সব জনগণকে ভ্যাকসিন দিতে সময় লাগবে অারেো ২ বছর। অন্তত এমনটাই মনে করেন সিরামের কর্তা অাদর পুনাওয়ালা। এনডিটিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে অাদর জানিয়েছেন  এমনটা মনে করার কোন কারণ নেই ভ্যাকসিন নিলে অার কেউ অাক্রান্ত হবেন না। ১০ জনের মধ্যে ৭জন হয়তো হবে না কিন্তু ২ -৩জন অাক্রান্ত হতেই পারেন। যে কোন ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রেই তা সত্যি।

নিয়ে বাজার এখন গরম। এই ভ্যকাসিন এসে গেল গোছের প্রচার সর্বত্র। ভ্যাকসিনের প্রাথমিক ট্রায়ালের সফলতার ভিত্তিতেই ভারতে তা তৈরি করার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছে সিরাম ইন্সটিটিউট। নামও ভেবে ফেলেছে তারা। কোভিশিল্ড হবে সিরামের তৈরি ভ্যাকসিনের নাম। লাইসেন্স  পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অগস্ট মাস থেকেই ভারতে করোনার ভ্যাকসিনের উত্পাদন শুরু করবে সিরাম। এনডিটিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে সিরামের সিইও অাদর পুনাওয়ালা জানিয়েছেন অক্টোবর- নভেম্বর নাগাদ অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনিকার ভ্যাকসিন সফল হল কি না তা স্পষ্ট হয়ে যাবে। ২০২১ এর শুরুতেই তা ভারতে পাওয়া যাবে। তবে ভারতে যা তৈরি হবে তার ৫০ শতাংশ বিদেশ রপ্তানি করতে হবে সিরামকে। অন্তত অ্যাস্ট্রাজেনিকার সঙ্গে তাদের এমনটাই চুক্তি। এখন পর্যন্ত কোভিশিল্ডের দাম ১০০০ টাকার মত করার ভাবনা তাদের। তবে অাদার জানিয়েছেন সরকার তাদের থেকে এই ভ্যাকসিন কিনে বিনামূল্যেই জনগণকে দেবেন। তাই দাম নিয়ে জনসাধরণের চিন্তার কোন কারণ নেই।