করোনা ভ্যাকসিন ও স্বল্পশিক্ষিত বাংলা নিউজ চ্যানেল

0
252

সাতদিন ডেস্কঃ দেশ ও দুনিয়াজুড়ে প্রতিদিন বাড়ছে  করোনায় অাক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। বাড়ছে ভয়। সেই সঙ্গে শুরু হয়েছে এই ভয়কে হাতিয়ার  করে ব্যবসা। ওষুধ কোম্পানি ও বেসরকারি হাসপাতালগুলির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এই দৌড়ে সামলি মিডিয়াও। বিশেষ করে বাংলার ২৪ ঘন্টা ধরে ঘ্যানঘ্যান করে চলতে থাকা বাংলা নিউজ চ্যানেলগুলি। করোনা নিয়ে নানা অর্ধ সত্য অাতঙ্ক পরিবেশনের পাশাপাশি ভ্যাকসিন নিয়ে অালোচনা এখন চ্যানেলগুলোর খাদ্য হয়ে উঠেছে। অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন নাকি সেপ্টেম্বরেই বাজারে মিলবে এমনটাই এদের অনেকের প্রচার। কিন্তু সত্যি কি তাই?

অক্সোফোর্ড ভ্যাকসিন বলে মিডিয়ায় পরিচিত ভ্যাকসিনটি অাসলে অ্যাসট্রাজেনিকা কোম্পানির সঙ্গে অক্সফোর্ডের যৌথ উদ্যোগ। এই ভ্যাকসিনটির মানব শরীরে প্রথম পর্যায়ের  ট্রায়ালের রিপোর্ট সোমবার প্রকাশিত হয়েছে ল্যানসেট নামের বিখ্যাত পত্রিকায়। সেখানে বলা হয়েছে প্রাথমিকভাবে এই ট্রায়াল সফল। তবে এখনও অনেকটা পথ এখনও বাকি। যদি সব ঠিকঠাক হয় তাহলে এই ভ্যাকসিন বাজারে অাসতে অাসতে ২০২১ এর মার্চ মাস লেগে যেতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞদের অনেকেই। অথচ এদেশের মিডিয়া বিশেষ করে বাংলা চ্যানেলগুলির প্রচার দেখে লোকে বিভ্রান্ত হবেন। মনে হবে যেন সেপ্টেম্বরই এই ভ্যাকসিন  বাজারে মিলত পারে।

করোনা চিকিত্সার নামে ওষুধদের কালাোবাজারি থেকে শুরু করে ভ্যাকসিন নিয়ে বিভ্রান্তিকর প্রচার সবটাই চলছে সরকার ও প্রশাসনের নাকের ডগায়। অার মধ্যবিত্ত অপেক্ষা করছে এক চমত্কারের। তারা প্রশ্ন করতে ভুলে গেছে জনস্বাস্থ্যে সরকার কেন এত উদাসীন থাকবে? কেন করোনা চিকিত্সার নামে লুট চলবে সর্বত্র? ভ্যাকসিন নিয়ে এত বাড়াবাড়ি ও বিভ্রান্তকর প্রচার কেন করা হচ্ছে? অাওয়াজ উঠুক ভ্যাকসিন এলে তা সবাইকে বিনামূল্যে দেওয়ার দাবির জন্য  পরিকাঠামো গড়ে তুলুক সরকার। স্বাস্থ্য কখনই ব্যবসা হতে পারে না ,চিকিত্সা মানুষের অধিকার। যত তাড়াতাড়ি অামরা তা বুঝবেো তত তাড়াতাড়ি সমাজের পক্ষে তা মঙ্গল।