স্যাটে আবার হার রাজ্য সরকারের দিতেই হবে বকেয়া ডিএ

0
198

সাতদিন ডেস্কঃ- স্যাটে খারিজ হয়ে গেল বকেয়া  ডিএ নিয়ে রাজ্য সরকারের পুনর্বিবচনার আবেদন।বুধবার স্যাট জানিয়ে দিয়েছে সরকারি কর্মীদের বকেয়া ডিএ দিতেই হবে।বছর খানেক আগেই রাজ্য সরকারের সিদ্ধান্ত খারিজ করে দিয়ে স্টেট আ্যডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইবুনাল বা স্যাট জানিয়ে দিয়েছিল সরকারি কর্মচারীদের ডিএ কোনভাবেই সরকারের দয়ার দান নয়,তা সরকারি কর্মীদের ন্যায্য প্রাপ্য।তাই বকেয়া ডিএ রাজ্য সরকারকে দিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল স্যাট।স্যাটের নির্দেশে পরিষ্কার বলা ছিল নতুন বেতন কমিশন চালু করার আগেই কর্মীদের বকেয়া ডিএ দিয়ে দিতে হবে।রাজ্য সরকার সেই নির্দেশকে মান্যতা না দিয়ে নতুন বেতন কমিশনের সুপারিশ কার্যকর করে দিয়েছে।অন্যদিকে রাজ্য সরকার স্যাটের কাছে আবেদন করে যে তারা যেন তাদের রায় পুনর্বিবেচনা করে।রাজ্য সরকারের তরফে দাখিল করা সেই রিভিয়ু পিটিশনের কারণেই সরকারি কর্মচারী সংগঠনগুলো রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ নিয়ে বেশীদূর এগুতে পারে নি।তারা অপেক্ষা করছিল স্যাটে রাজ্য সরকারের করা পুনর্বিবেচনা সংক্রান্ত আবেদনের রায় শোনার জন্য।বুধবার স্যাট জানিয়ে দিয়েছে এ বিষয়ে নতুন করে বিবেচনা করার কিছু নেই।সরকারি কর্মীদের ডিএ তাদের অধিকারের মধ্যেই পড়ে,কোনভাবেই সরকার তা না দেওয়ার কথা বলতে পারে না।

সরকারি কর্মচারী সংগঠনগুলো অবশ্য এর পরেও সরকারের ডিএ দেওয়ার সদিচ্ছা নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে।কর্মচারী সংগঠন নবপর্যায়ের পক্ষে অর্জুন সেনগুপ্ত জানিয়েছেন স্যাট যে রাজ্য সরকারের আবেদন খারিজ করে দেবে তা নিয়ে রাজ্য সরকারের কোন সন্দেহ ছিল বলে মনে করার কোন কারণ নেই।সরকার গোটা বিষয়টা ঝুলিয়ে রাখতে চায় সেই কারণেই অযৌক্তিক আবেদন করেছিল।এর পরেও রাজ্য সরকার হয়তো হাইকোর্ট বা সুপ্রিম কোর্টেও যেতে পারে।রাজ্য সরকার যে কোন ভাবে বিষয়টাকে সময়সাপেক্ষ করে তুলতে চায়।তাই অর্জুনবাবুর মতে সম্মিলিত প্রতিবাদ ও প্রতিরোধে সরকারকে তাদের ন্যায্য পাওনা দিতে বাধ্য করতে না পারলে কী হবে বলা মুশকিল।প্রায় একই সুর স্টিয়ারিং কমিটির সংকেত চক্রবর্তীর গলাতেও তিনিও মনে করেন স্যাটের রায় নতুন কিছু হবে না তা সরকারও জানতো,তারা কালক্ষেপ করে যেতে চায়,যতদিন আটকে রাখা যায় চেষ্টা করবে।তবে জোর করে ন্যায় পাওয়াকে আটকে রাখা যায় না।কর্মীরা এবার সে দিকে এগুবো বলেই সংকেতবাবুর প্রত্যাশা।কনফেডারেশন নেতা মলয় মুখোপাধ্যায় জানালেন তারা ইতিমধ্যেই সরকারের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা করে রেখেছেন যেহেতু সরকার স্যাটে আবেদন করে রেখেছিল তাই তারা বিষয়টি নিয়ে আটকে ছিলেন এবার তারা এগুতে পারবেন।সরকার বকেয়া ডিএ দিতে বাধ্য হবেন বলেই বিশ্বাস করেন মলয় মুখোপাধ্যায়।সব মিলিয়ে রাজ্য সরকার কর্মীদের ডিএ বিবাদ আবার চড়া হবে বলেই মনে করা হচ্ছে।