সুপ্রিমকোর্ট নিজের সম্মান হারাচ্ছে ,মত আইনজীবীদের একাংশের

0
97

সাতদিন ডেস্কঃ-বিশিষ্ট আইনজীবী ও সমাজকর্মী প্রশান্ত ভূষণকে যে ভাবে তাঁর ট্যুইট বার্তার কারণে সুপ্রিমকোর্টের তিন সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চ দোষী সাব্যস্ত করেছে তাতে দেশের প্রধান ন্যায়ালয় তার সম্মান খুঁইয়েছে বলেই মনে করছেন  বিশিষ্ট আইনজীবী ও সাংসদ বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য।এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন,সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিরা যে আচরণ করছেন তাতে মনে হচ্ছে তারা ক্রমশ ক্ষমতাসীন সরকারের কাছে আত্মসমর্পন করতে চাইছেন।বিচারবিভাগের নিরপেক্ষতার জন্য এটা খুবই বিপজ্জনক বলে মনে করছেন বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য।এদিন বিকাশবাবু সাতদিন ডট ইনকে জানান প্রশান্ত ভূষণ সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির আচরণে যে প্রশ্ন তুলেছিলেন সে প্রশ্ন এ দেশের অগণিত সাধারণ মানুষেরও সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির সেই সমালোচনার মর্মার্থ অনুধাবনের প্রয়াস করা উচিত ছিল,সেটা করলে সুপ্রিম কোর্টের সম্মান অনেক বাড়ত,তা না করে যেভাবে তাঁকে দোযী সাব্যল্ত করা হল তাতে আশঙ্কার যথেষ্ট কারণ থাকছে যে সুপ্রিম কোর্ট ক্রমেই দেশের শাসক দলের ভয়েস হয়ে উঠছে না তো?বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য মনে করেন এই সময় দেশের বিচার বিভাগ যদি নিরপেক্ষ আচরণ না করে তবে গণতন্ত্রের ভিত আলগা হয়ে যাবে,যার পরিস্থিতি এ দেশে তৈরি হচ্ছে বলেই মনে করেন বিকাশবাবু,তাঁর স্পষ্ট অভিমত প্রশান্ত ভূষণকে দোষী সাব্যস্ত করে সুপ্রিম কোর্টে তার প্রতি সন্দেহের দরজাটা নিজেই খুলে দিল।

সুপ্রীম কোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের এই নির্দেশকে তীব্র কটাক্ষ করে আইনজীবী অরুণাভ ঘোষ বলেন,একমাত্র তখনই বিচারবিভাগের সমালোচনা শাস্তি যোগ্য বলে বিবেচিত হতে পারে যদি কেউ কোন রায় সম্পর্কে বলেন যে অর্থ দিয়ে রায় কেনা হয়েছে,অন্যথায় বিচারবিভাগের সমালোচনা গণতান্ত্রিক অধিকার বলেই স্বীকৃত হয়ে এসেছে এতদিন।প্রশান্ত ভূষণ তাঁর ট্যুইট বার্তায় একটা নৈতিকতার প্রশ্ন তুলেছিলেন সেটা কোন যুক্তিতে শাস্তি যোগ্য অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে বোঝা যাচ্ছে না।অরুনাভবাবু বলেন,”সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতিরা এখন সরকাকের কাছে নিজেদের বিবেক বোধ বিকিয়ে দিতে চাইছেস তাই আইনের বাইরে গিয়ে যে কোন আচরণ করতে এদেঁর বাঁধছে না।”এই সব বিচারপতিরা এ দেশের গণতন্ত্র ও সংবিধানের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করে চলেছে বলে অভিযোগ করেন বিশিষ্ট এই আইনজীবী।কী শাস্তি দেয় সেটা দেখে সুপ্রিম কোর্টের এই সব বিচারপতিদের প্রতি তিনি আর কড়া কথা বলবেন বলেও জানিয়ে দিলেন,চ্যালেঞ্জ দিয়ে রাখলেন সুপ্রিম কোর্টের ঐ সব বিচারপতিরা যেন তাঁর বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়ার সাহস দেখান,তিনি তাঁর মোকাবিলা করতে তৈরি।