দেশের ৭ শতাংশের বেশি মানুষ কোভিডের শিকার হলেও সরকারি মতে অাক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে ৬১ লক্ষ!

0
13

সাতদিন ডেস্কঃ icmr করা দ্বিতীয় সেরো সার্ভ থেকে জানা যাচ্ছে অগস্ট মাসের শেষ নাগাদ দেশের ৭.১ শতাংশ প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যক্তি কোন না কোন সময় কোভিডে অাক্রান্ত হয়েছিলেন। অগস্ট ১৭ থেকে সেপ্টেম্বর ২২ এর মধ্যে এই সার্ভে করা হয়। এর অাগে মে মাসে icmr এর সার্ভেতে বলা হয়েছিল দেশের .৭৩ শতাংশ জনগণ কোভিডে অাক্রান্ত হয়েছিলেন। প্রথম সেরো সার্ভের মত এবারও ৭০০টি গ্রাম ও শহরের ওয়ার্ডের মধ্যেই করা হয়েছে।

গত মে মাসে প্রতিটি চিন্হিত কোভিড রোগী পিছু ৮০ থেকে ১৩০জন অাক্রান্ত রয়েছেন যাদের চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি। এবারের সার্ভেতে সেই সংখ্যা কিছুটা কম। বলা হচ্ছে প্রতি কোভিড রোগী পিছু  ২৬ থেকে ৩২ জনের সংক্রমণ চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি।

সরকারি সংস্থার করা একটি রিপোর্টের সঙ্গে সরকারি কোভিড অাক্রান্তের সংখ্যার যে ফারাক তা অস্বাভাবিক নয়। নানা সমীক্ষায় উঠে এসেছে এরমকই তথ্য। তাই দেশে কোভিড অাক্রান্তের সঠিক সংখ্যা জানা না গেলেও তা সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফে জারি করা  বর্তমান সাড়ে ৬১ লক্ষের থেকে কয়েকগুন বেশি তা অনুমান করা যায়।

 দিল্লির ২৩ শতাংশের মত মানুষ করোনা অাক্রান্ত। ২৭জুন থেকে ১০ জুলাই পর্যন্ত NCDC করা এই সার্ভেতে উঠে এসেছে ২৩.৪৮ শতাংশ মানুষের শরীরের অ্যান্টিবডি পাওয়া গেছে। তার মানে এরা কখনও না কখনও কোরনায় অাক্রান্ত হয়েছিলেন। শুধু দিল্লি নয় এটাই বাস্তব দেশের সর্বত্র। ২৫জন সাংসদ কোভিড অাক্রান্ত হওয়ার জেরে তাড়াহুড়ো করে শেষ করে দেওয়া হয় সংসদের অধিবেশন। সোমবার কোভিড পজিটিভ হন উপরাষ্ট্রপতি তথা রাজ্যসভার চেয়ারম্যান ভেঙ্কাইয়া নায়ডু। অাসলে সরকারের মানা  বা না মানা দিয়ে কোভিড রোখা যাবে না।