শুধু হাথরাস নয় , উত্তরপ্রদেশেই অাড়াল করা হয়েছে ধর্ষণে অভিযুক্ত অারো ২ বিজেপি নেতাকে

0
56

সাতদিন ডেস্কঃ হাথরাসে গণধর্ষণের শিকার এক যুবতীর মৃত্যুর পর  দেরিতে হলেও প্রতিবাদে পথে নেমেছে বিভিন্ন রাজনৈতিকদলগুলি। প্রতিবাদ হওয়া জরুরি। প্রতিদিন দেশে মহিলা বিশেষ করে দলিত মহিলাদের ওপর অত্যাচার ক্রমবর্ধমান। কিন্তু এই প্রতিবাদের ছিঁটে ফোঁটাও লক্ষ করা যায়নি এই উত্তরপ্রদেশে উন্নাও এ বিজেপির তত্কালীন বিধায়ক কুলদীপ সেনগার যখন ধর্ষণের পর গাড়ি চাপা দিয়ে নির্যাতিতাকে হত্যার চেষ্টা করেছিল সেই সময়। প্রতিবাদ হয়নি যখন বিজেপির প্রাক্তন সাংসদ তথা প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী চিন্মায়নন্দের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগকারিণী এক অাইনের ছাত্রীকেই জেলে পুড়ে দেওয়া হয়েছিল।

সাতদিন ডেস্কঃ উন্নাও ধর্ষিতা কিশোরির বাবাকে অনিচ্ছাকৃত খুনের অপরাধে বুধবার দিল্লির এক অাদালত দোষী সাব্যস্ত করল  বিজেপির বহিষ্কৃত বিধায়ক কুলদীপ সিং সেনগারকে । এর অাগে গত ডিসেম্বরে ওই কিশোরীকে ধর্ষণে দোষী সাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের অাদেশ দেয় দিল্লির অাদালত।

 ফিরে দেখাঃ

বছর যোলের উন্নাও এর কিশোরী চাকরির জন্য তত্কালীন বিজেপি বিধায়কের কাছে যায়। ২০১৭ সালের ৪জুন ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে উন্নাও এর বিজেপি বিধায়ক কুলদীপ সিং সেনগার। বারবার পুলিসের কাছে গিয়ে কোন ফল মেলে নি। বরং অভিযুক্তের পাঠানো লোকজনের মারধর করে তার বাবা পাপ্পু সিংকে। বিধায়কের  পাল্টা অভিযোগের জেরে গ্রেফতার হতে হয় ওই কিশোরীর বাবাকে।  ন্যায় বিচারের দাবিতে যোগী আদিত্যনাথের বাসভবনের সামনে গত বছর ৮ এপ্রিল ২০১৮ সালে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন পাপ্পুর কিশোরী মেয়ে ও তার পরিবারের অন্য সদস্যরা। এর পরের দিনই পুলিস হেফাজতে থাকাকালীন মৃত্যু হয়  পাপ্পু সিংয়ের।  চাপ বাড়তে থাকে। অবশেষে আদালতের নির্দেশের পর গ্রেফতার করা হয় ধর্ষণে অভিযুক্ত বিজেপি  বিধায়ককে।  মামলা স্থানান্তরিত করা হয় রাজ্যের বাইরে দিল্লিতে। তার পরও জেলে বসেই গাড়ি দুর্ঘটনায় নির্যাতিতাকে হত্যার ষড়য়ন্ত্র করে কুলীপ, সেই গাড়ি দুর্ঘটনা মৃত্যু হয় নির্যাতিতার ১ অাত্মীয়র। গুরুতর জখম হন নির্যাতিতা নিজেও। পরে অবশ্য নিম্ন অাদালত কুলদীপ সেনগারকে যাবজ্জীবন সাজা শুনিয়েছে। তাতে অার কি এসে যায়। এর পরও তো উচ্চ অাদালত অাছে।

চিন্ময়ানন্দের কুর্কীতি

 ৩ বারের বিজেপির প্রাক্তন সাংসদ চিন্ময়ানন্দ তাঁর স্নানের ছবি ভিডিও করে জোর করে ধর্ষণ করে। অাবার সেই ধর্ষণের ছবিও দেখিয়ে ১ বছর ধরে তাঁকে শারীরিকভাবে শোষণ করছিল বিজেপির এই প্রাক্তন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী।   দিল্লি পুলিস ও সুপ্রিম কোর্ট গঠিত সিটের কাছে নির্যাতিতা এই অভিযোগ করার পর গ্রেফতার করা হয় চিন্ময়ানন্দকে।  ছাত্রীর অভিযোগ কলেজে পড়ার পাশাপাশি লাইব্রেরিতে ৫০০০ টাকার চাকরি সুযোগ করে দেয় চিন্ময়ানন্দ। এর পর একদিন হোস্টেলে তাঁর স্নানের দৃশ্যের ভিডিও ভাইরাল করে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে তাকে ধর্ষণ করে চিন্ময়ানন্দ। তার পর এই শারীরিক শোষণ চলতেই থাকে বলে অভিযোগ করেছিলেন ওই ছাত্রী।

২০১৮ সালের ২৪ অগস্ট ফেসবুকে তাঁর কলেজের ছাত্রীদের যৌন শোষণ করা হচ্ছে বলে ভিডিও প্রকাশ করেন ওই ছাত্রী। নাম না করলেও বিজেপি সাংসদের বিরুদ্ধেই তাঁর অভিযোগ ছিল। এর পর থেকেই ২৩ বছরের ওই তরুণী নিখোঁজ হন। প্রথমে পুলিস অভিযোগ না নিলেও পরে চাপে পরে ২৭ অগস্ট ছাত্রীটির বাবার দায়ের করা fir নেয় পুলিস।  ছাত্রীটির নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত গড়ায়। যেদিন তাকে সুপ্রিম কোর্টে পেশ করার কথা তার ঠিক অাগে, ৬ দিন নিখোঁজ থাকার পর, তাঁর খোঁজ পায় সাহাজানপুর পুলিস। ছাত্রীর  অভিযোগ  তদন্ত করে দেখার জন্য রাজ্যকে sit গঠন করতে নির্দেশ দেয় সুপ্রিম কোর্ট। । ওই ছাত্রীর বাবা অভিযোগ করেছিলেন মেয়ের নিখোঁজের পিছনে বিজেপির প্রাক্তন সাংসদ চিন্ময়ানন্দের হাত রয়েছে।

বিজেপির এই প্রাক্তন সাংসদ, প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা সন্ন্যাসীর বিরুদ্ধে অাশ্রমের এক মহিলাকে ধর্ষণেরর অভিযোগে ২০১২ সালে পুলিস চার্জশিট দেয়। তবে ধর্ষণে অভিযুক্ত ৩ বারের এই সাংসদকে পুলিস সেই সময় গ্রেফতার করেনি। বিজেপির অারেকি প্রাক্তন নেতা সদ্য বহিষ্কৃত কুলদীপ সেনগার ধর্ষণে অভিযুক্ত। অার চিন্ময়ানন্দকে তো পুলিস ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত না করে লঘু ধারায় অভিযোগ করেছে। নির্ভয়া ধর্ষণে দোষীদের ফাঁসির দাবিতে তোলপাড় মিডিয়া। দেরিতে হলেও হাথরাসের গণধর্ষিতার জন্য ন্যায়ের দাবিতে সরব রাজনৈতিক দল সহ বহ মানুষ। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে না এই উত্তরপ্রদেশ বিজেপির নেতা( এখন প্রাক্তন)  কুলদীপ সেনগার বা চিন্ময়ানন্দের শাস্তির দাবিতে সেরকম সরব হয়নি কেউই এমনকি  নাগরিক সমাজও ।